শরতের শালুক ফুল-জড়িয়ে আছে লোকবিশ্বাস লোকসংস্কৃতি

Share your experience
  • 138
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    138
    Shares

শরতের শালুক ফুল-জড়িয়ে আছে লোকবিশ্বাস লোকসংস্কৃতি। বাংলায় ও বাংলাদেশ-শালুক, শালপা, নীল শাপলা ফুলকে শালুক বা নীলকমল, লাল শাপলা ফুলকে রক্তকমল বলা হয়। পদ্ম বা কমল ফুল গোত্রীয় হল শরতের শালুক।লিখছেন–পবিত্র পাঁজা।

শরতের শালুক ফুল
শরতের শালুক ফুল

এই কদিন আগেই আমাদের মেয়ে প্রতিভা সহজপাঠ পড়ছিল–

জলে আছে নাল ফুল…..
স্বাভাবিকভাবেই ও আমাকে প্রশ্ন ছুড়ে দিল-নাল ফুল কি বাবা!!
আমি বললাম শালুক ফুল। একদিন বিকালে মাঠের ধারে ওকে শালুক ফুল দেখাতে নিয়ে গেলাম।এবার জেনে নিই শালুক ফুল আর কি কি নামে পরিচিত-ইংরেজিতে “Water Lily”, White Water Lily, White Lotus, কুমুডা (সংস্কৃত), ভেলাম্বাল (তামিল), নিরাম্বল (মালয়ালম ভাষা), কান্নাইদিলি (কান্নাদা), থারো আংগৌবা (মনিপুরী), নাল (আসামি ভাষা)। বাংলায় ও বাংলাদেশ-শালুক, শালপা, নীল শাপলা ফুলকে শালুক বা নীলকমল, লাল শাপলা ফুলকে রক্তকমল বলা হয়। পদ্ম বা কমল ফুল গোত্রীয় হল শরতের শালুক।

শরতের শালুক ফুল

বর্ষাকাল থেকে শরতকালের শেষ পর্যন্ত জলজ জমি, খাল বিল, পুকুর বা জলাশয়ের জন্মায় শালুক। এর কান্ড বা ডাঁটা বা পুস্পদন্ড সব্জী হিসেবে খাওয়া হয়। এই ফুলের গর্ভাশয়ে গুঁড়ো বালির মতো চটচটে আঠালো জাতীয় বীজ থাকে। উদ্ভিদটির গোড়ায় থাকে আলুর মত এক ধরনের কন্দ যার নাম ‘শালুক’, এটি সব্জি হিসেবেও ব্যবহৃত হয়। শালুক আবার ঔষধি গাছ। আয়ুর্বেদিক ঔষুধ তৈরিতে এই গাছকে ব্যবহার করা হয়। বর্তমানে কৃষি জমিতে কীটনাশক ব্যবহারে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে শালুক গাছ।

শরতের শালুক ফুল ও ফল

রঙিন শালুক ফুল দিয়ে ঘর সাজানো হয়। বিয়ে বাড়ি ও হোটেলগুলোতে এই ধরনের ফুলের ব্যবহার চোখে পড়ে। গ্রাম বাংলায় খুদেরা গলায় মালা তৈরী করে খেলায় মেতে থাকে। বড়োদের সাপের ভয় দেখানো।শালুক প্রেমীরা অবশ্য তাদের মত করে বাড়ির বারান্দায় কিংবা ছাদে এই গাছ লাগিয়ে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটায়।শালুকের যে ফুল থেকে ফল হয়, এখনকার দিনের ছেলেপুলেরা অনেকেই জানেনা। এই ফুলের গর্ভকেশরকে গ্রাম্য ভাষায় ‘ঢ্যাপ’/ ‘ভেট’ বলে।

কাঁচা শালুক ফল  ঢ্যাপ

ছোটবেলায় আমরা কাঁচা শালুক ফল/ ঢ্যাপ ছাড়িয়ে অনেক খেয়েছি। এই কাঁচা ঢ্যাপকে জলে ভিজিয়ে, পচিয়ে ঘুড়ির সুতোতে মাঞ্জা দেওয়ার কাজে লাগাতাম। এই পদ্ধতিকে অনেক জায়গায়’তালমাকনা’ বলে।রাখালীয়া জীবনে শালুকের কন্দ (গেঁড়ো, যা শুয়োরের প্রিয় খাবার) জলাশয় থেকে তুলে, পরিষ্কার করে, বট-পাকুড় বা অশত্থের শুকনো ডাল ভেঙে, মাঠ কুড়োনি শুকনো গোবরের সাঁজালে পুড়িয়ে নিয়ে খাওয়া। ভিতরকার রঙ হতো মাখন হলুদ।

শালুক ফুলের বাহার
শালুক ফুলের বাহার

কাঁচা শালুক ফুল ও ভেটের মুড়ি

কাঁচা ঢ্যাপ পুরুষ্টি হলে বা পাকলে খেতে চমৎকার লাগে। পাকা শালুক বীজ দেখতে ক্ষুদ্র কালো সরিষার মত। বীজ ছাড়িয়ে রোদে দেওয়া হয়। মুড়ির মত তপ্ত বালিখোলায় ভাজা হয়। অত্যন্ত হালকা। কথা বলার শব্দতেই উড়ে যায়। শালুক খৈ কে ‘ভেট ভাজা’ বলি। খুদ ভাজার মতো দেখতে। খেতে অত্যন্ত সুস্বাদু। বর্তমান দিনের পপকর্নকে হার মানাবে। প্রত্যন্ত গ্রাম বাংলায় ভেটের মুড়ি বিক্রি হয়। অনেকে আবার গুড় দিয়ে ‘মোয়া’ তৈরি করে থাকেন। কবি জসীমউদ্দীনের ‘পল্লীজননী’ কবিতায়ও আছে এই ঢ্যাপের মোয়ার কথা।
“রাখিও ঢ্যাপের মোয়া তুমি সাতনড়ি শিকা ভরে।”
ঢ্যাপ বা ভেট’কে নিয়ে প্রচলিত একটি প্রবাদ পাই-
“আহলাদী এক ঢ্যাপের খই-
এত ঠমক পাইলি কই…”

আরও পড়ুন- বাবলাগাছ- অবহেলিত গ্রাম্য বৃক্ষটি জড়িয়ে আছে প্রাচীন ধর্মসংস্কৃতিতে

লোকবিশ্বাস

 হিন্দুরা দীপাবলির পরের দিন ভোরবেলা যে ‘শুকপূজা’ বা ‘শুকভাঁটা’নামে শুক্রগ্রহের পূজা হয়। এই পুজোয় শালুকফুল অবশ্যম্ভাবী প্রয়োজন।শ্রীলঙ্কান বৌদ্ধ ধর্মীরা বিশ্বাস করেন, গৌতম বুদ্ধের পায়ের ছাপে পাওয়া ১০৮ টি শুভ চিহ্ন। যার মধ্যে একটি ‘শালুক ফুল’ চিহ্ন রয়েছে।

 দেখুন শরত সুন্দরীকে


Share your experience
  • 138
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    138
    Shares

Facebook Comments

Post Author: পবিত্র পাঁজা

পবিত্র পাঁজা
পবিত্র পাঁজা--শিক্ষাগত যোগ্যতা-বাণিজ্য বিভাগের স্নাতক ও কম্পিউটার ডিপ্লোমা ধারী। পেশায়-রিয়েলস্টেট এমপ্লয়ি। নেশায়- হাওড়া জেলা গ্রাম নামের উৎস সন্ধান। ইতিমধ্যে ১০৫২টি গ্রাম পরিভ্রমণ। উদ্দেশ্য হাওড়া জেলার প্রতিটি গ্রামে আমার চরণচিহ্ন রেখে যেতে পারি।দীর্ঘ ২৫ বছর এই ধরনের কাজের সঙ্গে যুক্ত। 'হাওড়া জেলা ইতিহাস লোকসংস্কৃতি গবেষণা কেন্দ্র' প্রতিষ্ঠাতা সহ-সম্পাদক। হাওড়া উলুবেড়িয়া মহকুমা সংস্কৃতি পরিষদ থেকে প্রকাশিত 'শত গাঁয়ের পেটের কথা' (২য় খন্ড) অন্যতম সম্পাদক।বাগনান থানার ইতিহাস রচনার কমিটি'র অন্যতম সদস্য। নিজের গবেষণালব্ধ গ্রন্থ 'চাকুর গ্রামের ইতিবৃত্ত' (২০০৪) ।

1 thought on “শরতের শালুক ফুল-জড়িয়ে আছে লোকবিশ্বাস লোকসংস্কৃতি

Comments are closed.